AdmissionUniversity Admission

মেডিকেল ভর্তি সার্কুলার ২০২২ – এমবিবিএস ভর্তি ফর্ম

মেডিকেল ভর্তি সার্কুলার ২০২১-২২ প্রকাশিত  হয়েছে। এমবিবিএস ভর্তি ফর্ম ২০২২ DGHS Teletalk Com BD ভর্তির ওয়েবসাইটের মাধ্যমে পূরণ করা যেতে পারে। আবেদনের মেয়াদ শেষে একই ওয়েবসাইট থেকে অ্যাডমিট কার্ড ডাউনলোড করতে হবে। ভর্তি পরীক্ষার তারিখ, কেন্দ্রের নাম এবং আসন পরিকল্পনা অ্যাডমিট কার্ডে উল্লেখ থাকবে। মেডিকেল ভর্তি সার্কুলার ২০২২

বাংলাদেশের সকল সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজের জন্য একটি ব্যাপক ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল পরীক্ষা শেষে প্রকাশ করা হবে। সকল সরকারি মেডিকেল কলেজে মেধা তালিকা ও অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে ভর্তি সম্পন্ন করা হবে। বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলো একই তালিকা থেকে ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করবে। সরকারি মেডিকেল কলেজের ভর্তি প্রক্রিয়া শেষে বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলো ভর্তির বিজ্ঞপ্তি দেবে। মেডিকেল ভর্তি সার্কুলার ২০২২

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজে এমবিবিএস এবং বিডিএস কোর্সের জন্য নতুন ভর্তি নীতি ২০২২ প্রকাশ করেছে। সোমবার (২ নভেম্বর) নীতিমালায় স্বাক্ষর করেন মন্ত্রণালয়ের পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব, MBBS ভর্তি পরীক্ষা ১ এপ্রিল ২০২২ এ অনুষ্ঠিত হবে ।

ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র অনলাইন আবেদনের সময়সীমার পরে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ডাউনলোড করতে হবে। অ্যাডমিট কার্ডে পরীক্ষার তারিখ, কেন্দ্রের নাম, ঠিকানা, পরীক্ষার কেন্দ্রের কোড এবং বিস্তারিত আসন পরিকল্পনা অন্তর্ভুক্ত থাকবে। মেডিকেল ভর্তি সার্কুলার ২০২২

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা নির্ধারিত পরীক্ষা কেন্দ্রে একই প্রশ্নে একযোগে নেওয়া হবে। ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল পরীক্ষার পর প্রকাশ করা হবে। এই মেধা ও অপেক্ষমাণ তালিকার মাধ্যমে সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে।

বর্তমানে বাংলাদেশে মোট ১০০টি মেডিকেল কলেজ রয়েছে। এর মধ্যে ৩১টি সরকারি এবং ৬৯টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ।

সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস কোর্সের জন্য ৯,৫৬৮টি আসন রয়েছে। এর মধ্যে সরকারি মেডিকেল কলেজে আসন সংখ্যা ৬ হাজার ২৫০ এবং বেসরকারি মেডিকেল কলেজে আসন সংখ্যা ৩ হাজার ৩১৮।

Table of Contents

এমবিবিএস ভর্তি ২০২১-২২মেডিকেল ভর্তি সার্কুলার ২০২২

আবেদন শুরু: ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২২

আবেদনের শেষ তারিখ: ১০ মার্চ ২০২২

ভর্তির ওয়েবসাইট: dgme.teletalk.com.bd

অ্যাডমিট কার্ড ডাউনলোড:  ২৬ মার্চ থেকে ২৯ মার্চ ২০২২

ভর্তি পরীক্ষার তারিখ: ১ এপ্রিল ২০২২, শুক্রবার, সকাল ১০ টা থেকে ১১ টা পর্যন্ত

প্রয়োজনীয় জিপিএ/ যোগ্যতা

সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য আবেদন করতে হলে একজন প্রার্থীর নিম্নলিখিত যোগ্যতা থাকতে হবে।

  • আবেদনকারীকে অবশ্যই বাংলাদেশী নাগরিক হতে হবে। সরকার কর্তৃক বিদেশীদের জন্য সংরক্ষিত আসনের জন্য শুধুমাত্র বিদেশী শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে।
  • প্রার্থীদের ২০২১ বা ২০২০ সালে এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে
  • বিজ্ঞান গ্রুপে SSC এবং HSC বা সমমানের দুই পরীক্ষায় মোট GPA কমপক্ষে ৯.০০ হতে হবে।
  • পার্বত্য জেলার উপজাতি ও অ-উপজাতি প্রার্থীদের এসএসসি এবং এইচএসসি স্তরের পরীক্ষায় ন্যূনতম মোট জিপিএ ৮.০০ থাকতে হবে। যাইহোক, পৃথকভাবে কোনো পরীক্ষার জন্য ন্যূনতম ৩.৫০ এর কম GPA গ্রহণ করা হবে না।
  • এসএসসি এবং এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় অবশ্যই পদার্থবিদ্যা, রসায়ন এবং জীববিদ্যা অন্তর্ভুক্ত থাকতে হবে।
  • এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় জীববিজ্ঞানে ন্যূনতম জিপিএ ৩.৫০ থাকতে হবে।

মেডিকেল ভর্তি মার্ক বিতরণ এবং প্রশ্ন প্যাটার্ন

মোট ১০০ নম্বরের MCQ টাইপ লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। আপনি যদি এটিতে ৪০ নম্বর পান তবে এটি পাস হিসাবে বিবেচিত হবে। লিখিত পরীক্ষায় যারা ৪০ নম্বরের কম পাবে তারা ফেল বলে গণ্য হবে। শুধুমাত্র সফল প্রার্থীদের মেধা তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

  • HSC এবং SSC থেকে মার্কস গণনা করা হবে: ২০০
  • ভর্তি পরীক্ষার জন্য নম্বর: ১০০
  • ভর্তির মোট নম্বর: ৩০০
  • লিখিত পরীক্ষার মোট নম্বর: ১০০

 ভর্তি পরীক্ষা সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য:

  • লিখিত পরীক্ষায় প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য ০.২৫ নম্বর কাটা হবে।
  • ২০২০ সালের ভর্তি পরীক্ষার জন্য ৫.০ নম্বর কেটে নেওয়া হবে।

মেডিকেল ভর্তি সার্কুলার ২০২১-২২

এমবিবিএস কোর্সের জন্য মেডিকেল ভর্তির আবেদন শুরু হবে ২৮  ফেব্রুয়ারি ২০২২ সকাল ১০ এ । আবেদনের শেষ তারিখ ১০ মার্চ ২০২২ , সোমবার রাত ১১:৫৯ টায়, নির্ধারিত সময়সীমার পরে কোনও আবেদন গ্রহণ করা হবে না।

মেডিকেল কলেজের জন্য আবেদন করার জন্য আপনাকে অভিভাবকদের সাথে আলোচনা করে নিজেকে প্রস্তুত করতে হবে। এমবিবিএস কোর্সের জন্য আবেদন করার আগে কিছু তথ্য এবং উপকরণ নিশ্চিত করুন।

  • সিরিয়াল অনুযায়ী আপনার মেডিকেল কলেজ পছন্দ তালিকা তৈরি করুন।
  • একটি ৩০০x৩০০ পিক্সেল সাম্প্রতিক রঙিন ছবি।
  • স্ক্যান করে একটি ৩০০x৮০ পিক্সেল স্বাক্ষর।
  • পছন্দ অনুযায়ী ভর্তি পরীক্ষার কেন্দ্র তালিকা।
  • পেমেন্টের জন্য একটি টেলিটক মোবাইল ফোন

মেডিকেল ভর্তি সার্কুলার ২০২২

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে, ভর্তির ফর্ম পূরণ করা শুরু করুন। এমবিবিএস কোর্সে ভর্তির আবেদন সম্পূর্ণ করতে নিম্নলিখিত ধাপগুলি সম্পূর্ণ করুন।

  • প্রথমে dgme.teletalk.com.bd ভিজিট করুন বা আবেদনপত্রের জন্য এখানে ক্লিক করুন ।
  • আপনি যদি বাংলা মাধ্যমের ছাত্র হন তবে “জাতীয় পাঠ্যক্রম (এসএসসি এবং এইচএসসি / সমমান) প্রার্থীদের জন্য অনলাইন আবেদনপত্র” নির্বাচন করুন৷ বিকল্প আপনি ইংরেজি মাধ্যমের ছাত্র হলে “GCE (O / A / উভয় / সমতুল্য) প্রার্থীদের জন্য অনলাইন আবেদনপত্র” নির্বাচন করুন। আপনার কাছে DGHS থেকে সমতুল্য সার্টিফিকেট কোড থাকলে অনুগ্রহ করে এগিয়ে যান।
  • পরবর্তী ধাপ হল আপনার SSC রোল এবং রেজিস্ট্রেশন নম্বর, HSC রোল এবং রেজিস্ট্রেশন নম্বর, শিক্ষা বোর্ডের নাম এবং পাসের বছর।
  • আপনার স্থায়ী ঠিকানা, বর্তমান ঠিকানা, মোবাইল নম্বর, আরও একটি ঐচ্ছিক মোবাইল নম্বর, কোটা থাকলে কোটার তথ্য ইত্যাদি প্রদান করুন।
  • একটি মেডিকেল পছন্দ তালিকা প্রদান করুন.
  • পরবর্তী ধাপ হল আপনার সমস্ত তথ্যের পূর্বরূপ এবং যাচাই করা।
  • আপনার ছবি এবং স্বাক্ষর আপলোড করুন.
  • আবেদনপত্র “জমা দিন” এবং আবেদনকারীর কপি ডাউনলোড করুন।
  • আবেদনকারীর কপির নির্দেশনা অনুযায়ী প্রয়োজনীয় আবেদন ফি প্রদান করুন।

মেডিকেল ভর্তি সার্কুলার ২০২২ টাকা দেবার নির্দেশ

সমস্ত তথ্য সম্পূর্ণ করার পরে আপনাকে এটি ঘন ঘন পুনরায় পরীক্ষা করতে হবে। আপনি যদি এখন আপনার তথ্যে সন্তুষ্ট হন তাহলে আপনি এটি জমা দিতে পারেন এবং এটি প্রিন্ট আউটের জন্য প্রস্তুত। ভবিষ্যতের রেফারেন্সের জন্য এটি সংরক্ষণ করতে একটি প্রিন্ট কপি নিন এবং 72 ঘন্টার মধ্যে অর্থপ্রদান করুন। আবেদন ফি প্রদানের নির্দেশনা:

টেলিটক মোবাইল ফোনের মাধ্যমে এমবিবিএস ভর্তি ফি প্রদান করতে অনুগ্রহ করে নীচের নির্দেশাবলী অনুসরণ করুন।

SMS-1:

MBBS<space>User ID এবং 16222

নম্বরে পাঠান উদাহরণ: MBBS FGLTGS এবং 16222 নম্বরে পাঠান

প্রথম এসএমএস পাঠানোর পর টেলিটক আপনাকে একটি পিন নম্বর দিয়ে আবেদন ফি উল্লেখ করে রিপ্লে করবে। অনুগ্রহ করে পিন নম্বরটি নোট করুন এবং এখন দ্বিতীয় এসএমএস পাঠান।

আবার আপনার মোবাইল ফোনের এসএমএস অপশনে যান এবং টাইপ করুন-

SMS-2:

এমবিবিএস<স্পেস>পিন<স্পেস>সেন্টার কোড

উদাহরণ: এমবিবিএস হ্যাঁ 45632115 19,47,38,26

  • (,) কমা দিয়ে পছন্দ অনুসারে 4টি কেন্দ্র কোড দিন।

মেডিকেল ভর্তি সার্কুলার ২০২২

মেডিকেল ভর্তি সার্কুলার ২০২২ কেন্দ্র কোড এবং আসন ক্ষমতা

মেডিকেল ভর্তির জন্য আবেদন ফি প্রদান করার সময় প্রার্থীকে পরীক্ষা কেন্দ্রের নাম নির্বাচন করতে হবে। কমপক্ষে 3টি কেন্দ্র কোড কমা দিয়ে লিখতে হবে। নীচে কেন্দ্রের নাম, কোড এবং মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা দেওয়া হল।

কলেজকোডকলেজের নামপরীক্ষা কেন্দ্র
13বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ, ফরিদপুর
15চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ, চট্টগ্রাম
18কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ, কুমিল্লা
19ঢাকা মেডিকেল কলেজ, ঢাকা
21খুলনা মেডিকেল কলেজ, খুলনা
23এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ, দিনাজপুর
24এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ, সিলেট
26মুগদা মেডিকেল কলেজ, ঢাকা
27ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ, ময়মনসিংহ
31পাবনা মেডিকেল কলেজ, পাবনা
33রাজশাহী মেডিকেল কলেজ, রাজশাহী
35রংপুর মেডিকেল কলেজ, রংপুর 
42শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ, বরিশাল
38শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ, ঢাকা
39শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ, কিশোরগঞ্জ
41শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ, বগুড়া।
46শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজ, গোপালগঞ্জ
47স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ, ঢাকা
99ঢাকা ডেন্টাল কলেজ, ঢাকা

মেডিকেল ভর্তি সার্কুলার ২০২১-২২

মেডিকেল ভর্তির ফলাফল

মেডিকেল ভর্তির ফলাফল ২০২০-২১  প্রকাশিত হয়েছে। এটি ৪ এপ্রিল ২০২১-এ প্রকাশিত হয়েছে। রবিবার MBBS ফলাফল ২০২১ প্রকাশিত হয়েছে। মেডিকেল পাসের হার ৩৯.৮৬ শতাংশ। মেডিকেল রেজাল্ট ২০২১ ওয়েবসাইট এবং SMS এর মাধ্যমে প্রকাশিত। মোট উত্তীর্ণ প্রার্থী ৪৮,৯৭৫ জন। তাদের মধ্যে সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য মোট ৪ হাজার ৩৫০ জন প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। এর আগে, স্বাস্থ্য পরিষেবা ডিজিএইচএস ডিরেক্টরেট জেনারেল বলেছিল, এমবিবিএস কোর্সের জন্য মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রস্তুত করার কাজ চলছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডিজিএইচএস সূত্র থেকে রেজাল্ট বাংলাদেশ এ তথ্য জানিয়েছে।

MBBS ভর্তির ফলাফল ২০২১ ফলাফল DGHS Gov BD ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। সফল প্রার্থীরা এসএমএস-এর মাধ্যমে ফলাফল সম্পর্কে জানাতে শুরু করেছেন। এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষার মেধা তালিকার সাথে অপেক্ষমাণ তালিকাও প্রকাশ করা হয়েছে। এই মেধা তালিকা এবং অপেক্ষমাণ তালিকার ভিত্তিতে বাংলাদেশের সকল সরকারি মেডিকেল কলেজ ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তি সম্পন্ন করা হবে। তারা প্রার্থীদের মেধা স্কোর অনুসরণ করবে।

এবার বিপুল সংখ্যক পরীক্ষার্থী ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বুয়েটের CSE বিভাগকে মেডিকেল ভর্তির ফলাফল ২০২১ তৈরিতে সহায়তা করার জন্য তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। সারাদেশ থেকে শিক্ষার্থীদের পাঠানো উত্তরপত্র দেশ স্ক্যান করা হয়েছে. ওএমআর মেশিনের মাধ্যমে দেখা হচ্ছে। এটাও চূড়ান্ত পর্যায়ে। ফলাফল আজ রাতে প্রস্তুত হবে. ফলাফল রবিবার যে কোন সময় প্রকাশ করা হবে।

এর আগে, এমবিবিএস ১ম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা ২০২০-২১ শুক্রবার, ২ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হয়েছিল। পরীক্ষাটি সারাদেশে সকাল ১০ টা থেকে অনুষ্ঠিত হয়। ১৯টি কেন্দ্রের ৫৫টি ভেন্যুতে একযোগে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ভর্তি পরীক্ষায় ১ লাখ ১৬ হাজার ৮৫৬ জন পরীক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন। এ বছর এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে আবেদন করেছেন ১ লাখ ২২ হাজার ৮৭৪ জন।

মেডিকেল মাইগ্রেশন ফলাফল ২০২১

সরকারি মেডিকেল মাইগ্রেশন ফলাফল ২০২১ আজ ২২ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখে প্রকাশিত হবে । এর আগে এমবিবিএস মাইগ্রেশনের ফল স্থগিত করা হয়েছিল। সরকারি মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস ভর্তির মাইগ্রেশন তালিকা ২০ ডিসেম্বর প্রকাশের কথা থাকলেও তা স্থগিত করা হয়।

এমবিবিএস এবং বিডিএস মাইগ্রেশন তালিকা ২০২১ একসাথে প্রকাশ করা হবে। এমবিবিএস এবং বিডিএস কোর্সে বেশ কয়েকটি আসন খালি থাকার পরিপ্রেক্ষিতে এই মাইগ্রেশন ফলাফল প্রকাশ করা হচ্ছে। এ বছর বাংলাদেশে সরকারি মেডিকেল কলেজে ৩৩৪টি শূন্যপদ রয়েছে। এই শূন্যপদগুলি মাইগ্রেশন এবং অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে ছাত্রদের দ্বারা পূরণ করা হবে।

বাংলাদেশের সরকারি মেডিকেল কলেজে আসন সংখ্যা ৪,৩৫০। এর মধ্যে ৪৫টি আসনে কোনো শিক্ষার্থী ভর্তি হয়নি এবং বাতিল হয়েছে ২৮৯টি আসনে। সব মিলিয়ে প্রথম ধাপে ৩৩৪ জন শিক্ষার্থীর মাইগ্রেশন সম্পন্ন হবে।

এমবিবিএস মাইগ্রেশনের ফলাফল মেধা তালিকা হিসাবে পরিচিত হবে। ফলাফল স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে। নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের এসএমএসের মাধ্যমেও ফলাফল জানানো হবে।

মেডিকেল ভর্তি সার্কুলার ২০২২

মেডিকেল ফলাফল ২০২১

মেডিকেল রেজাল্ট ২০২১ প্রকাশিত হয়েছে। পাসের হার ৩৯.৮৬%। সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য মোট চার হাজার ৩৫০ জন প্রার্থীকে মনোনীত করা হয়েছে। মোট পাস করেছে ৪৮,৯৭৫ জন। জাতীয় মেধার ভিত্তিতে এ বছর বাংলাদেশের ৩৭টি সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য ৪ হাজার ৩৫০ জন শিক্ষার্থী নির্বাচিত হয়েছে।

প্রকাশিত ফলাফল অনুযায়ী, চলতি শিক্ষাবর্ষ থেকে ৩,৯৩৭ জন এবং আগের শিক্ষাবর্ষ থেকে ৪১৩ জন শিক্ষার্থী নির্বাচিত হয়েছে। এই ভর্তি পরীক্ষায় মেধা তালিকায় শীর্ষে ছিলেন মিসৌরি মুনমুন। তার রোল নম্বর ২৫০০২৩৮।

ঢাকা মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য নির্বাচিত হয়েছেন মিসৌরি মুনমুন। তার মোট মার্কস ২৮৭.২৫। মুনমুন ভর্তি পরীক্ষায় ১০০ নম্বরের মধ্যে ৮৭.২৫ পেয়েছে।

মেডিকেলে ভর্তির রেজাল্ট জানবেন কিভাবে?

মেডিকেল ভর্তির ফলাফল dghs gov bd mbbs ওয়েবসাইটের মাধ্যমে জানা যাবে। সফল প্রার্থীদের SMS এর মাধ্যমেও জানানো হবে। আবেদনের সময় প্রদত্ত মোবাইল নম্বর প্রার্থীকে জানানো হবে।

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় ৪০% নম্বর সহ প্রার্থীদের মেধা তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। শুধুমাত্র মেধা তালিকায় থাকা প্রার্থীদের এসএমএসের মাধ্যমে ফলাফল জানানো হবে। ৪০% এর কম নম্বর সহ ছাত্রদের অকৃতকার্য হিসাবে বিবেচনা করা হয় এবং মেধা তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয় না।

MBBS ফলাফল ২০২১ সহ অপেক্ষমাণ তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। মেধা তালিকা থেকে ভর্তির শেষে অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে ভর্তি সম্পন্ন করা হবে। সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তির কাজ শেষ হলে বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলো ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করবে। এই মেধা তালিকা এবং অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে সকল সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তি সম্পন্ন হবে।

MBBS ফলাফল ২০২০-২১ (ফলাফল DGHS Gov BD)

অনলাইনে এমবিবিএস ফলাফল ২০২১ জানতে নীচের নির্দেশাবলী অনুসরণ করুন । সকল প্রার্থী তার/তার ভর্তি পরীক্ষার রোল নম্বর দিয়ে ফলাফল জানতে পারবে। প্রার্থীরা তার স্কোর, যোগ্যতার অবস্থান, বরাদ্দকৃত মেডিকেল কলেজের নাম ইত্যাদি জানতে পারবে। মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য মনোনীত প্রার্থীর নামও এমবিবিএস ভর্তির ফলাফলে উল্লেখ করা হবে।

  • ফলাফল.dghs.gov.bd ভিজিট করুন অথবা ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল জানতে।
  • MBBS অপশনে ক্লিক করুন
  • আপনার ভর্তি পরীক্ষার রোল নম্বর লিখুন।
  • ফলাফল বোতামে ক্লিক করুন।

মেডিকেলে ভর্তি সার্কুলার ২০২২ এসএমএসের মাধ্যমে মেডিকেল রেজাল্ট

এসএমএসের মাধ্যমে মেডিকেল রেজাল্ট জানা যাবে। তবে, ডিরেক্টরেট জেনারেল অফ হেলথ সার্ভিসেস ডিজিএইচএস প্রার্থীদের এসএমএসের মাধ্যমে ফলাফল সম্পর্কে অবহিত করবে। প্রার্থীরা মেসেজ করেও ফল জানতে পারবেন না। এমবিবিএস ফলাফল সম্পর্কে শুধুমাত্র সফল প্রার্থীদের এসএমএস পাঠানো হবে। ভর্তি পরীক্ষায় ৪০% নম্বর প্রাপ্ত প্রার্থীরা মেধা তালিকায় স্থান পাবেন। আবেদনের সময় প্রার্থীর দেওয়া মোবাইল নম্বরে ফলাফল জানিয়ে দেওয়া হবে। আবেদনকারীদের কোনো এসএমএস পাঠানোর সুযোগ নেই।

এমবিবিএস মেধা তালিকা

মেডিকেল ভর্তি ফলাফল ২০২১ মেধা তালিকা লিখিত ভর্তি পরীক্ষা এবং প্রার্থীদের এসএসসি/সমমান এবং এইচএসসি/সমমান পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে প্রস্তুত করা হয়েছে। লিখিত পরীক্ষায় ১০০ নম্বর এবং SSC ও HSC ফলাফলে ২০০নম্বর বিবেচনা করে এই ফলাফল তৈরি করা হয়েছে। মেধা তালিকা তৈরিতে এসএসসি ফলাফল ৭৫ এবং এইচএসসি সমমানের ফলাফল ১২৫ হিসাবে বিবেচিত হয়। তবে যারা ভর্তি পরীক্ষায় ৪০ নম্বরের কম পেয়েছে তাদের মেধা তালিকায় স্থান দেওয়া হয়নি। এ বছর মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় ৪৮ হাজার ৯৭৫ জন পরীক্ষার্থী পাস করেছে। এর মধ্যে ৪ হাজার ৩৫০ প্রার্থীর জন্য আসন বরাদ্দ রয়েছে।

মেডিকেল ভর্তির অপেক্ষার তালিকা

মেডিকেল ভর্তির ফলাফলের সাথে অপেক্ষমান তালিকাও প্রকাশ করা হয়েছে। মেধা তালিকা থেকে ভর্তি শেষ হলে অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে ভর্তি করা হবে। যারা মেধা তালিকায় আছে তাদের নির্ধারিত মেডিকেল কলেজে ভর্তি সম্পন্ন করতে হবে। যদি তিনি মনোনীত কলেজে ভর্তি না হন তবে তার আসন খালি ঘোষণা করা হবে এবং অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে ভর্তি করা হবে। তবে, প্রার্থী যদি নির্ধারিত কলেজে ভর্তি হন, তবে তিনি পরবর্তীতে মাইগ্রেট করার সুযোগ পাবেন।

সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তির পর বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলো একই তালিকা থেকে ভর্তি গ্রহণ করবে। প্রতিটি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ আলাদা ভর্তি বিজ্ঞপ্তি জারি করবে। তারা মেধা স্কোর অনুযায়ী ভর্তি সম্পন্ন করবে।

রি-স্ক্রুটিনি আবেদন

মেডিকেল ভর্তির ফলাফলে কারো কোন আপত্তি থাকলে তাকে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পুনরায় যাচাই-বাছাইয়ের জন্য আবেদন করতে হবে। টেলিটক মোবাইলের মাধ্যমে আবেদন করা যাবে। নির্ধারিত আবেদন ফি প্রদান করে মেডিকেল ফলাফল চ্যালেঞ্জ করা যেতে পারে। মেডিকেল ভর্তির ফলাফল চ্যালেঞ্জ সংক্রান্ত বিশদ বিজ্ঞপ্তি এবং নির্দেশাবলী ডিরেক্টরেট জেনারেল অফ হেলথ সার্ভিসেস ডিজিএইচএস ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে। ২০ এপ্রিল থেকে পুনরায় যাচাইয়ের আবেদন করা যাবে। মেডিকেল রেজাল্ট চ্যালেঞ্জের শেষ তারিখ ৫ মে ২০২১। পুনরায় যাচাই-বাছাই করার জন্য আবেদন ফি ১০০০ টাকা। যা টেলিটক প্রি-পেইড মোবাইল সিমের মাধ্যমে তৈরি করা যায়। মেডিকেল প্রেসক্রিপশন অ্যাপ্লিকেশনের জন্য আবেদন করতে, প্রথমে আপনার মোবাইল ফোন মেসেজ অপশনে যান এবং টাইপ করুন- DGHS <space> RSC <space> Admission Roll Number এবং 16222 এ পাঠান। পিন নম্বর পাওয়ার পর,

মেডিকেলে ভর্তি ২০২১ চ্যালেঞ্জ ফলাফল

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল চ্যালেঞ্জ করেছেন মোট ৫ হাজার ১৯০ জন পরীক্ষার্থী। তারা তাদের ফলাফল পুনঃনিরীক্ষার জন্য আবেদন করেছে। ইতিমধ্যে তাদের উত্তরপত্র যাচাই-বাছাই সম্পন্ন হয়েছে।

এমবিবিএস চ্যালেঞ্জের ফলাফল ২০ মে ২০২১ এ প্রকাশিত হয়েছে। যাদের ফলাফল পরিবর্তন হবে তাদের মোবাইল নম্বরে SMS এর মাধ্যমে জানানো হবে। হালনাগাদ ফলাফলও স্বাস্থ্য সেবা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট result.dghs.gov.bd-এ প্রকাশ করা হবে। আবেদনকারীরা তাদের ভর্তি পরীক্ষার রোল নম্বর দিয়ে হালনাগাদ ফলাফল জানতে পারবে।

মেডিকেল অ্যাডমিট কার্ড ২০২২

মেডিকেল ভর্তির প্রবেশপত্র ২০২১ প্রকাশিত হয়েছে। মেডিকেল অ্যাডমিট কার্ড আজ ২৬ মার্চ ২০২২ থেকে ডাউনলোড করা যাবে । এমবিবিএস ভর্তির প্রবেশপত্র 25 মার্চ পর্যন্ত ডাউনলোড করা যাবে। ভর্তি পরীক্ষা ২৯ মার্চ, ২০২২ তারিখে অনুষ্ঠিত হবে ।

স্বাস্থ্য পরিষেবা ডিজিএইচএস অধিদপ্তর আবেদনকারীদের এসএমএসের মাধ্যমে প্রবেশপত্র প্রকাশের বিষয়ে অবহিত করবে। এসএমএস পাওয়ার পর, আবেদনকারী DGHS Teletalk Com BD ওয়েবসাইট থেকে প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারবেন। প্রবেশপত্র ডাউনলোড এবং প্রিন্ট করতে, প্রার্থীদের তাদের ব্যবহারকারী আইডি এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে হবে। ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড হারিয়ে গেলে একই ওয়েবসাইট থেকে উদ্ধার করা যাবে।

মেডিকেল ভর্তির প্রবেশপত্র কিভাবে ডাউনলোড করবেন?

এমবিবিএস অ্যাডমিট কার্ড সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজের ভর্তির ওয়েবসাইট DGHS Teletalk Com BD থেকে ডাউনলোড করা যাবে। এই ওয়েবসাইটের এমবিবিএস বিকল্প থেকে অ্যাডমিট কার্ড ডাউনলোড করা যেতে পারে। প্রার্থীরা অ্যাডমিট কার্ড বিকল্পে তাদের ব্যবহারকারী আইডি এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগ ইন করে প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারেন। আপনি এটি ডাউনলোড করতে নীচের নির্দেশাবলী অনুসরণ করতে পারেন.

মেডিকেল ভর্তির প্রবেশপত্র ২০২০-২১ ২০ মার্চ, ২০২১ থেকে ডাউনলোড করা যাবে। ২৫ মার্চ ২০২১ পর্যন্ত MBBS অ্যাডমিট কার্ড ডাউনলোড করা যাবে। প্রার্থীরা তাদের ব্যবহারকারী আইডি এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগ ইন করে প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারেন।

এমবিবিএস আসন পরিকল্পনা

মেডিকেল সিট প্ল্যানের তথ্য অ্যাডমিট কার্ডে উল্লেখ করা আছে। প্রবেশপত্রে পরীক্ষার কেন্দ্রের নাম, স্থানের নাম, ঠিকানা, কক্ষ নম্বর ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য রয়েছে। ফলস্বরূপ, আলাদা আসন ব্যবস্থা প্রকাশ করা হবে না। প্রবেশপত্র ডাউনলোড করার পর বিস্তারিত বসার ব্যবস্থা পাওয়া যাবে। প্রতিটি প্রবেশপত্রে আসন সংক্রান্ত তথ্য এমনভাবে উল্লেখ করা হয়েছে যাতে পরীক্ষার্থীরা সরাসরি তার আসন খুঁজে পান। প্রবেশপত্রে ভর্তি পরীক্ষার তারিখ এবং পরীক্ষা সংক্রান্ত নির্দেশনাও উল্লেখ থাকে।

প্রার্থীদের জন্য বিশেষ নির্দেশনা:

  • প্রথমে উত্তরপত্রে (OMR) মুদ্রিত প্রার্থীদের জন্য নির্দেশাবলী পড়ুন, তারপর পরীক্ষার একেবারে শুরুতে প্রশ্নপত্র থেকে এই OMR উত্তরপত্রটি সাবধানে আলাদা করে উত্তর দেওয়া শুরু করুন।

অন্যান্য নির্দেশাবলী:

  • অনুগ্রহ করে ভর্তি পরীক্ষার সময় আপনার এইচএসসি/সমমানের প্রবেশপত্র/রেজিস্ট্রেশন কার্ডের সাথে এই প্রবেশপত্রটি প্রিন্ট করুন এবং আনুন এবং আরও ভর্তির
    আনুষ্ঠানিকতার জন্য এটি সংরক্ষণ করুন।
  • প্রার্থীকে লেখার জন্য কালো কালির বল পয়েন্ট কলম বহন করতে হবে। পরীক্ষার হলে মোবাইল ফোন, ক্যালকুলেটর ও ঘড়ি বহন করা কঠোরভাবে নিষিদ্ধ।
  • প্রার্থীকে লিখিত পরীক্ষা শুরু হওয়ার ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার কেন্দ্রে রিপোর্ট করতে হবে। পরীক্ষার সময় ১ঘন্টা (সকাল ১০ টা থেকে ১১ টা)।
  • পরীক্ষার্থীদের সকাল সাড়ে ৯টার আগে পরীক্ষার হলে প্রবেশ করতে হবে। সকাল সাড়ে ৯টায় পরীক্ষা কেন্দ্রের প্রধান ফটক বন্ধ করে দেওয়া হবে

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button

Adblock Detected

Please Disable your AdBlocker.